অতি সাম্প্রতি র‌্যানসমওয়্যারে (ম্যালওয়্যার) হামলার শিকার হয়েছে প্রযুক্তিবিশ্ব। হ্যাকারদের সাইবার হামলায় ১৫০ দেশের দুই লাখ কম্পিউটার আক্রান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে ইউরোপের নিরাপত্তা সংস্থা ইউরোপোল।আর এই কারণে আমাদের দেশের মোবাইল ব্যবহারকারীগণ Govt Info থেকে Windows Security Patch Update সংক্রান্ত বিষয়ে ক্ষুদে বার্তা পেয়েছেন। কম্পিউটারের তথ্যসমূহের নিরাপত্তা রক্ষায় এবং Wanna crypt Ransomware ম্যালওয়্যারের  আক্রমণ থেকে সর্ম্পূণ মুক্ত রাখতে কম্পিউটারে উইন্ডোজ ব্যবহারকারীদের Windows Security Patch আপডেট করা অতীব জরুরী বিষয় হয়ে দাড়িঁয়েছে। কিন্তু অনেকেই তাদের কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ থাকা সত্বেও উইন্ডোজের নিরাপত্তা সংক্রান্ত Windows Security Patch আপডেট করতে ব্যর্থ হয়েছেন।আবার ম্যানুয়ালি সিক্যুারিটি আপডেট সংক্রান্ত ফাইল ডাউনলোড করেছেন কিন্তু উইন্ডোজের র্ভাসন,ওস বিল্ড নাম্বার এবং  সিসেটম টাইপের বিট সংক্রান্ত বিষয় সঠিক ধারণা না থাকার কারণে আপডেট ইনস্টলে ত্রুটির সম্মুখীন হয়েছেন।সকল ঝামেলা এড়িয়ে কিভাবে Windows Security Patch Update সংক্রান্ত আপডেট ব্যবহার করবেন তা এই টেকলার্ন পোস্টের মাধ্যমে সহজে করতে পারবেন আশা করি।

উইন্ডোজ -৮ ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্যঃ

প্রথমে  Windows Security Patch Update লিংকে ক্লিক করুন।

এখানে মাইক্রোসফট পেজে Windows Security Patch সংক্রান্ত ফাইলটি সয়ংক্রিয়ভাবেই সিলেকশন করা পাবেন। সিলেক্ট থাকা লিংকে ক্লিক করুন।

দ্বিতীয় ধাপে “This update will be downloaded and installed automatically from Windows Update. To get the stand-alone package for this update, go to the Microsoft Update Catalog website “এই প্যারা শেষের দিকে “Microsoft Update Catalog” লিংকে প্রবেশের জন্য ক্লিক করুন।

তৃতীয় ধাপে, আপনি আপনার কম্পিউটারের জন্য Windows Security Patch ফাইলটি পেয়ে যাবেন। আপনার উইন্ডোজ বিট যদি ৩২ বিট হয় তাহলে 2017-05 Security Only Quality Update for Windows 8.1 for x86-based Systems (KB4019213) এই Security Updates ফাইলটি ডাউনলোড করুন। আর যদি উইন্ডোজ বিট ৬৪ হয় তবে 2017-05 Security Only Quality Update for Windows 8.1 for x64-based Systems (KB4019213) এই Security Updates ফাইলটি ডাউনলোড করুন।

 

চর্তুথ ধাপে ডাউনলোড কৃত ফাইলটিতে ডাবল ক্লিক করে ইনস্টল করুন। আপনার কম্পিউটার রিস্টার্ট নিবে। কয়েক মিনিটেই Windows Security Patch সংক্রান্ত আপডেট সফলভাবে সম্পূর্ন হবে।

 

উইন্ডোজ-১০ ব্যবহারকারীদের করনীয়ঃ

প্রথমে আপনার উইন্ডোজ ১০ এর উইন্ডোজ ভার্সন ,ওএস বিল্ড নাম্বার এবং সিস্টেম টাইপের বিট (৩২ বিট না ৬৪ বিট)  সংক্রান্ত তথ্যগুলো জেনে নিন। সার্চে বাটনে about your PC  লিখতেই দেখবেন সার্চের লিস্টে চলে এসেছে, সেখানে ক্লিক করলেই উইন্ডোজের ভার্সন, ওএস বিল্ড নাম্বার এবং বিট তথ্যগুলো পেয়ে যাবেন। এ তথ্যগুলো লিখে রাখুন।

 

তারপর   Windows Security Patch Update লিংকে ক্লিক করুন।

এখন মাইক্রোসফট পেজ থেকে আপনার কম্পিউটারে ইনস্টল করা উইন্ডোজের ভার্সন মিলিয়ে সেই লিংকে ক্লিক করুন।

এখানে উইন্ডোজের ভার্সন অনুযায়ী বিভিন্ন ওএস বিল্ড নম্বর আপডেট ফাইল থেকে আপনার কম্পিউটারের ওএস বিল্ড নম্বর মিলিয়ে সেই লিংকে ক্লিক করুন।

তারপর “This update will be downloaded and installed automatically from Windows Update. To get the stand-alone package for this update, go to the Microsoft Update Catalog website.” এই প্যারা শেষের দিকে “Microsoft Update Catalog” লিংকে প্রবেশের জন্য ক্লিক করুন।

এই ধাপে, আপনি আপনার কম্পিউটারের জন্য Windows Security Patch ফাইলটি পেয়ে যাবেন। আপনার উইন্ডোজ বিট যদি ৩২ বিট হয় তাহলে  Cumulative Update for Windows 10 Version 1703 (KB4015583) এই Security Updates ফাইলটি ডাউনলোড করুন। আর যদি উইন্ডোজ বিট ৬৪ হয় তবে  Cumulative Update for Windows 10 Version 1703 for x64-based Systems (KB4015583)  এই Security Updates ফাইলটি ডাউনলোড করুন।

 

শেষ ধাপে ডাউনলোড কৃত ফাইলটিতে ডাবল ক্লিক করে ইনস্টল করুন। আপনার কম্পিউটার রিস্টার্ট নিবে। কয়েক মিনিটেই Windows Security Patch সংক্রান্ত আপডেট সফলভাবে সম্পূর্ন হবে।

 

যেভাবে র‌্যানসমওয়্যার থেকে নিজের কম্পিউটার নিরাপদ রাখবেন:
১) অরিজিনাল উইন্ডোজ সিস্টেম ব্যবহার করা। অপারেটিং সিস্টেম নিয়মিত হালনাগাদ করা

২) অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার এবং নিয়মিত আপডেট করা।

৩) অপ্রত্যাশিত ই-মেইল না খোলা ভালো। অপরিচিত কিংবা স্প্যাম মেইল এবং এর এটাচ ফাইল ওপেন থেকে বিরত থাকা। হ্যকাররা বিভিন্ন লোভনীয় অফার দিয়ে মেইল পাঠিয়ে ক্লিক করতে উদ্ধুদ্ধ করেন, তাই কোন লোভনীয় অফার জাতীয় মেইলে ক্লিক করবেন না। বিশেষ করে মেইল আসা কোনো লিঙ্কে ক্লিক এবং ফাইল ডাউনলোডের সময় আরও বেশি সর্তক থাকতে হবে। সেখানে থাকা কোনো লিঙ্কে ক্লিক বা ফাইল ডাউনলোড করলেই কম্পিউটারের র‍্যানসমওয়্যার ইন্সটল হয়ে যায় ব্যবহারকারীদের অজান্তে।

৪) পাসওয়ার্ড  আদান-প্রদানে বিরত থাকা

৫) পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহারের চেয়ে লিনাক্স ব্যবহার করা ভালো। ট্রায়াল, ক্রাক কিংবা ফ্রি সফ্টওয়্যার ব্যবহার না করে কেনা সফ্টওয়্যার ব্যবহার করুন। প্রতিটি সফ্টওয়্যারের লাইসেন্স এবং রিলায়বল সাইট থেকে ক্রয় করুন। ভালো রিভিউ  এবং রেটিং দেখতে ভুলবেন না।

 

৬) সিকুরিটি ভার্নাবিলিটি সর্ম্পকিত কোন সাইট ভিজিট করবেন না, উক্ত সাইটগুলো থেকে কোন সফ্টওয়্যার বা ফাইল ডাউনলোড করবেন না।অনিরাপদ ওয়েবসাইটে যাওয়া, ছবি, সফটওয়্যার ডাউনলোডের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে। কেননা, লোভনীয় ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফাঁদ পেতে বসে আছে হ্যাকাররা। হ্যাকাররা একই নাম ও ছবির আড়াঁলে র‍্যানসমওয়্যার সফটওয়্যার আপনার কম্পিউটার ইন্সটল করিয়ে নিলো

৭) পেনড্রাইভ থেকেও এটি ছড়াতে পারে। তাই কোনো ফাইল খোলার ক্ষেত্রে ডাবল ক্লিক করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

৮) র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণ হলে সবচেয়ে বেশি ঝামেলায় পড়তে হয় কম্পিউটারের থাকা জরুরি ফাইল, ছবি ও ভিডিও নিয়ে। কথায় আছে ‘প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ ভালো’ তাই র‍্যানসমওয়্যার আক্রান্তের আগেই কম্পিউটারের যাবতীয় ফাইল ব্যাকআপ রাখা উচিত। এক্ষেত্রে ব্যাকআপ এমন ডিভাইস রাখতে হবে যেন সেখানে ইন্টারনেট সংযোগ না থাকে। সবচেয়ে ভালো উপায় হলো পোর্টবেল হার্ডড্রাইভে ব্যাকআপ রাখা।

 

৯) কম্পিউটারের ফাইলসমুহ ক্লাউড স্টোরেজ এ ব্যাকআপ রাখুন। বর্তমানে ড্রপবক্স, গুগল ড্রাইভেও আপনি ১৫ জিপি পর্যন্ত ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ পাচ্ছেন। বিনামূল্যের পাশাপাশি অর্থের বিনিময়ে ক্লাউড সেবা পাওয়া যায় এরকম অনেক সার্ভিস রয়েছে।

১০) উইন্ডোজ ফোন ব্যবহারকারীদের জন্য ৩৬০ ডিগ্রি সিকিউরিটি ব্যবহার ও অটো আপডেট অপশন চালু রাখতে হবে।

 

সবাই ভালো থাকবেন।