“ চুপ করে থাকলে সমস্যা কমবে না বরং অপরাধীর সাহস  আরো বাড়বে”

সাইবার বুলিং হলো বর্তমানে অনলাইন টেকনোলজির মাধ্যমে আক্রমন, হ্যারাজমেন্ট করা। যা সাধারনত হয়ে থাকে ইমেইল এবং ম্যাসেজ-এর মাধ্যমে, অনেক সময় বাক্তিগত তথ্য, ভিডিও, ছবি এবং ফেসবুক স্ট্যাটাস-এর মাধ্যমে ও এই আক্রমন করা হয়ে থাকে। এ ধরনের সাইবার দুর্বৃত্তদের দ্বারা  কেউ সাইবার বুলিং-এর শিকার হলে কখনোই চুপ করে থাকার কথা ভাববেন না, সরাসরি আইনের সাহায্য নিন। মনে রাখবেন, চুপ করে থাকলে সমস্যা কমবে না বরং অপরাধী আরও সাহস পেয়ে যাবে। তাই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং আইনগত সহযোগিতা দেয় এমন প্রতিষ্ঠানের শরণাপন্ন হোন।

 

 

 

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন, ২০০৬-এ ইচ্ছাকৃতভাবে ওয়েবসাইট বা অন্য কোনো ইলেকট্রনিক বিন্যাসে মিথ্যা বা অশ্লীল কিছু প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা আছে। আইন লঙ্ঘন করলে ১৪ বছর পর্যন্ত জেলও হতে পারে। হয়রানির ঘটনায় তথ্যপ্রযুক্তি আইন বা পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়ে থাকে।

 

হয়রানির শিকার যে কেউ সরাসরি বিটিআরসিতে যোগাযোগ করতে পারেন। বিটিআরসি ফোনে ও ইমেইলে দুইভাবেই অভিযোগ গ্রহণ করে থাকে। বিটিআরসির কম্পিউটার সিকিউরিটি ইনসিডেন্স রেসপন্স টিম এ ধরণের সমস্যায় সহায়তা করে থাকে। বিটিআরসিতে হয়রানির অভিযোগ জানাতে কল করতে পারেন (০২)৭১৬২২৭৭ নম্বরে বা ইমেইল পাঠাতে পারেন contact@csirt.gov.bd ঠিকানায়।

 

ইন্টারনেট নিরাপত্তা সম্পর্কিত পরামর্শ পেতে এবং সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত সে কোন তথ্য জানাতে ফোন করুন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সাইবার নিরাপত্তা হেল্পডেক্স ০১৭৬৬৬৭৮৮৮৮ নম্বরে।

 

এছাড়াও, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হটলাইন ১০৯২১ নম্বরে ফোন করলেও গোপনীয়তা রক্ষা করে এ ধরণের সমস্যার সমাধান করা হয়।

 

সাইবার সিকিউরিটি এন্ড ক্রাইম ডিভিশন, ডিএমপি , হেডকোয়ার্টর্স, ঢাকাতেও একটি সাইবার হেল্প ডেস্ক রয়েছে। ঠিকানাঃ ৩৬ শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী স্মরণী, রমনা, ঢাকা।

 

এছাড়াও পুলিশের নতুন সেবা হটলাইন ৯৯৯ নম্বরে ফোন করেও আপনার অভিযোগ দায়ের করতে পারবেন।

 

যারা আপনার সুনাম নষ্টের জন্য ইর্ষাকাতর হয়ে নস্ট মন মানসিকতার লোকজন ফেসবুকে ফেক আইডি খুলে অসত্য, মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে তাদের প্রতিরোধ করুন।

 

অভিযোগ করার র্পূব প্রস্ততি:

 

URL সহ উক্ত সাইবার বুলিং সংক্রান্ত পোস্টগুলো স্ক্রীণর্শট নিয়ে রাখুন এবং অভিযোগ দায়েরের সময় তা প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করুন। আশা করি ক্রিমিনালী করার স্বাদ মিটে যাবে।