ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি বর্তমান  স্মার্টফোনের যে প্রযুক্তিতে জোর দেয়া হচ্ছে তা হলো। গুগল পিক্সেল, মটোরলা মটো জেড, ওয়ান প্লাস, এলজি জি৫ এবং এইচটিসি ১০, অপ্পো  ফাস্ট চার্জিং স্মার্টফোন হিসেবে সুপরিচিত। এই  প্রযুক্তি আসলে কতটা ফাস্ট চার্জ করতে সক্ষম।সাধারণত একটি ফোন পুরোপুরি চার্জ করতে এক থেকে দুই ঘণ্টা লাগে। আর ফোনের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি ১৫ অথবা ৩০ মিনিট চার্জে অনেক ঘণ্টা ব্যাক আপ দিয়ে থাকে।  সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান যেমন- কোয়ালকম কুইক চার্জ, ওয়ানপ্লাস ড্যাশ চার্জিং এবং মটোরলা Turbo চার্জিং প্রযুক্তিতে প্রবেশ করেছে।

এ ছাড়াও কোয়ালকম ঘোষণা দিয়েছে তাদের আসন্ন কুইক চার্জ ৪.০ প্রযুক্তি একটি ফোনকে পাঁচ মিনিট চার্জ করে পাঁচ ঘণ্টা পর্যন্ত ব্যাকআপ দেবে।তবে এই ফাস্ট Charging প্রযুক্তি আসলেই কি ফাস্ট চার্জ করতে সক্ষম? অথবা অল্প সময়ের এই চার্জ কত সময় পর্যন্ত থাকে? প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট সিনেট বেশ কিছু ফোনকে দিয়ে এই প্রযুক্তির পরীক্ষা করে দেখেছে। পরীক্ষায় হ্যান্ডসেটগুলো পুরো ড্রেইন অবস্থায় (০% চার্জ) ফাস্ট চার্জ দেয়া হয়েছে। প্রতিটি ফোনকে প্রথমে ১৫ মিনিট চার্জ করে ড্রেইন করা হয়েছে আবার ৩০ মিনিট চার্জ করে আবার ড্রেইন করা হয়েছে, এরপর পুরো চার্জ করা হয়েছে। প্রতিটি ফোনে এই প্রক্রিয়াটি তিনবার করে করা হয়েছে। একেকটি প্রক্রিয়া শেষ করে ব্যাটারির শতকরা হিসাব রাখা হয়েছে এবং সবশেষে গড় হিসাব করা হয়েছে।পরীক্ষার ফলাফল ব্যাটারি লাইফ গেইনের শতাংশ হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে। পরীক্ষায় ব্যবহৃত ফোনগুলো আট মাস পুরনো ছিল।এলজি জি৫ ফোনে কোয়ালকম কুইক চার্জ ৩.০ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে এবং এই প্রযুক্তিতে বলা হয়, ৩০ মিনিটে ৫০ শতাংশ চার্জ করতে সক্ষম।

ফাস্ট চার্জিং

কোয়ালকম ‘কুইক চার্জ ৩.০’ প্রযুক্তির চার্জার দিয়ে ৩৫ মিনিটেই স্মার্টফোনের ব্যাটারি আশি শতাংশ চার্জ করা যায়। এবার দ্রুততম সময়ে মোবাইল ফোন চার্জের নতুন এক প্রযুক্তি এনেছে অপ্পো, যা মাত্র মাত্র ১৫ মিনিটে স্মার্টফোনের ব্যাটারি শূন্য থেকে সম্পূর্ণ চার্জ করবে।

 

এ ধরনের অবস্থায় কতটুকু চার্জ হলো তা দেখতে বারবার স্মার্টফোনটি চেক করার অভ্যাস কম-বেশি সবারই আছে। কিন্তু আপনার স্মার্টফোন দ্রুত চার্জ হওয়ার অন্যতম অন্তরায় এটি। ফলে ব্যাটারির ব্যবহার হতে থাকে আর স্মার্টফোনটি চার্জ খোয়াতে থাকে। এতে হিতে বিপরীত ঘটে। তাই দ্রুত চার্জ করিয়ে নিতে চাইলে বারবার চেক করার অভ্যাস ত্যাগ করে শান্তিতে চার্জ হতে দিন।

কভার খুলে ফেলুন :কভার আপনার স্মার্টফোনটিকে আবদ্ধ করে রাখে। এতে স্মার্টফোনটি অপেক্ষাকৃত গরম থাকে। গরম থাকা অবস্থায় ব্যাটারি তুলনামূলক কম চার্জ গ্রহণ করতে সক্ষম। এই জন্য যদি সম্ভব হয় তবে চার্জ দেওয়ার সময় আপনার স্মার্টফোনটি ঠাণ্ডা জায়গায় রাখুন। এতে ব্যাটারি দ্রুত চার্জ গ্রহণ করতে পারে।

ফাস্ট চার্জিং

বার্সেলোনায় ওয়ার্ল্ড মোবাইল কংগ্রেসে ‘সুপারভোক’ প্রযুক্তির এই চার্জার উন্মোচন করেছে চীনা এই মোবাইল কোম্পানি। তাদের দাবি, স্মার্টফোন ফুলচার্জ করার জন্য এই মুহূর্তে এটিই বিশ্বের সব থেকে দ্রুততম প্রযুক্তি।

ফাস্ট চার্জিং

অপ্পোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘সুপারভোক’ প্রযুক্তিতে মাত্র ১৫ মিনিটে ২৫০০ এমএএইচ’র একটি মোবাইল ব্যাটারি শূন্য থেকে সম্পূর্ণ চার্জ করা যাবে। শুধু তাই নয়, মাত্র পাঁচ মিনিট চার্জ করলেই দশ ঘণ্টার বেশি টক টাইম পাওয়া যাবে।