টেকলার্ন বিডিএরপক্ষথেকেআপনাদেরসবাইকেশুভেচ্ছা।কেমন আছেন সবাই?  আশা করি ভালই আছেন।আজকে একটি গুরুত্বপূর্ণপোস্টনিয়ে আপনাদের কাছে হাজির হলাম ।আমরা যারা স্মার্টফোন ব্যবহারকরি তারা কম্পিউটার কিংবা অন্য কিছু থেকে স্মার্টফোনেই নিজেদের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এবং কাজ করতে পছন্দ করি। আর হ্যাকাররা এখন কম্পিউটার থেকে স্মার্টফোনের দিকেই বেশি নজর দিচ্ছে।

একটি সতর্কমূলক পোস্ট হ্যাকারদের লক্ষ্য আপনার মোবাইল ফোন।

 

স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা ইন্টারনেটে সংযোগ দিয়েই ফোনে ব্যাংকিং সহ নানান বিল পে সার্ভিসের কাজ করে থাকেন, এছাড়াও স্মার্টফনে নানান গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রাখেন যা অন্য কারো হাতে গেলে অনেকেই বিপদে পরতে পারেন। এছাড়াও আপনি কি আপনার পুরনো স্মার্টফোনটি বিক্রি করে নতুন স্মার্টফোন কেনার কথা ভাবছেন? তাহলে সাবধান থাকুন, কেননা পুরনো মোবাইলের দিকে হ্যাকারদের দৃষ্টি থাকে সবচেয়ে বেশি।

সাধারনত আমরা স্মার্টফন ব্যবহার করলে এতেইন্টারনেট কানেশান দিয়ে থাকি, তা না হলে স্মার্টফোনের পরিপূর্ণতা আসেনা, বর্তমানে যা কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ করি তার মধ্যে রয়েছে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য, ডেবিট- ক্রেডিট কার্ডের তথ্য কিংবা অন্যান্য ফিনান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য। আর এসকল তথ্য হ্যাকারদের হাতে গেলে বড় ধরণের ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে ব্যবহারকারীদের।

আপনি জানেন কি?

বর্তমানে অনেকেই তাদের বিভিন্ন কাজ যেমন ব্যাংকিং, ই-শপিং, কিংবা অন্যান্য কাজ করে থাকেনমোবাইলের মাধ্যমে। আর এসব কাজে ব্যবহার করা ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের তথ্য খুব সহজেই চলে যেতে পারে হ্যাকারদের হাতে।

এই বিষয়ে এক গবেষণা শেষে ইন্ডিয়ান স্কুল অফ ইথিক্যাল হ্যাকার-এর কো-ফাউন্ডার এবং পরিচালক সন্দীপ সেনগুপ্ত ICT 2014 সম্মেলনে জানান,”ফোন মেমোরি কিংবা মেমোরি কার্ড থেকে মুছে ফেলার পরও বিভিন্ন তথ্য সেখানে থেকে যায়। অন্য কোন ডেটা সেই জায়গা ওভার রাইট করার আগ পর্যন্ত খুব সহজেই এই তথ্য পুনরুদ্ধার করা সম্ভব। আর তাই মুছে ফেলার পরিবর্তে সেখানে অন্য কোন ডেটা ওভার রাইট করাই যুক্তিসঙ্গত। অন্যথায় আপনার বড় বিপর্যয় হতে পারে।

তিনি আরও জানান, হ্যাকাররা বর্তমানে মোবাইল ফোনকে তাদের লক্ষ্যবস্তু হিসেবে নির্ধারণ করেছে। আর তাই ব্যবহারকারীদের এই ব্যাপারে খুব সতর্ক থাকার পরামর্শও দেন তিনি।

ফলে এখন থেকে হ্যাকারদের থেকে আপনার প্রিয় স্মাটফোনটি আর নিরাপদ নেই, অতএব, সাবধানে নিজের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদান প্রদান করুন এবং অন্য কারো হাতে ফোন দেয়ার আগে ভাবুন। আশা করি টিপসটি পড়ে সবাই উপকৃত হবেন সবাইকে ধন্যবাদ ।