ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার এর ব্যবহার নিয়ে আলোচনা করব।

যে কোন  ডকুমেন্টস্ বা ‍এপলিকেশনে ডাটা ট্রান্সফার করা হয় কপি-পেস্টের মাধ্যমে, আর এই কাজে সাহায্য করে উইন্ডোসের ক্লিপর্বোড যেখানে ডাটা স্টোরেজ থাকে টেম্প্ররারীভাবে।

উদাহরণসরুপ- আপনি যখন একটি টেক্সট্ কোন ডকুমেন্ট  থেকে কপি করে অন্য কোন ডকুমেন্টে পেস্ট করেন তখন ক্লিপর্বোড এর কাজ হলো  ঐ টেক্সটি প্রথমে ধারন করে পরে তা নিজের স্টোরেজ থেকে মুছে ফেলে ঐ টেক্সটি অন্য ডকুমেন্টে মুভ করে দেয়।

তবে উইন্ডোজের ক্লির্বোডের দুইটি বড় লিমিটেশন আছে তা হলো-

১. আপনি একই সময় একটি আইটেম কপি করতে পারবেন। যদি আপনি একের অধিক ডাটা কপি করতে চান তবে আলাদা আলাদা ভাবে আপনাক কপি করতে হবে। আপনি কখনই একই সাথে একের অধিক ডাটা একসাথে একই সময় কপি করতে পারবেন না।

২. এই কপিকৃত ডাটাগুলো ক্লিপর্বোডে সাময়িকভাবে ধারন করে। কম্পিউটার বন্ধ হলে এই ডাটা মুছে যায় আর কখনই ফিরে পাওয়া যায় না।

এই লিমিটেশনের কারনে দ্রুত কাজ করা যায় না। কপি-পেস্ট দ্বারা কম্পিউটারের কাজকে আরোও বেগময় করার জন্য আপনি ব্যবহার করতে পারেন ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার এক্সটেন্ডস্, যা উইন্ডোজের ক্লিপর্বোডকে সাহায্য করে এক্ই সময়ে মাল্টিপল ডাটা কপি পেস্ট করতে।

তাহলে ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার কিভাবে ব্যবহার করবেন ?

১. প্রথমে ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার ডাউনলোড করতে হবে। ডাউনলোড করুন- এখানে

২. ইন্সটল করুন। আপনি চাইলে র্স্ট্যট-আপে রাখতে পারেন অথবা ম্যানোয়ালি করতে পারেন। যদি ফায়ারওয়াল কানেকশন চায় তবে তা এলাও করবেন না।

৩. প্রোগ্রামটি রান করুন। এইটা সিস্টেম ট্রেতে নীল কালার বলের মতো দেখাবে।

৪. এখন আপনি স্বাভাবিক নিয়মে একের অধিক ডাটা কপি করেন যা আপনার প্রয়োজন। এই ডাটাগুলো একের পর এক ডিত্তো ক্লিপর্বোডে ‍স্টোর হতে থাকবে,। আপনি যখন খুশি তখন পেস্ট করতে পারবেন।

৫. আপনি যেই ডকুমেন্টে কপিকৃত ডাটা পেস্ট করতে চান সেই ডকুমেন্টটি ওপেন করেন। যেই স্থানে ডাটা পেস্ট করতে চান সেই স্থানে অবশ্যই কার্সারটি রাখতে হবে।

৬. সিস্টেম ট্রে থেকে নীল কালার বাটন চেপে অথবা কনট্রোল এবং প্লাস চেপে ডিত্তো ক্লিপর্বোড ওপেন করুন। ডিত্তো ক্লিপর্বোডে সময় এবং তারিখ অনুযায়ী ডাটা সংরক্ষীত থাকে।

ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার

ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার

৭. আপনার যেই ডাটা পেস্ট করা দরকার সেই ডাটার উপর ডাবল ক্লিক করুন। দেখবেন আপনার সিলেক্টেড স্থানে ডাটাটি পেস্ট হয়ে গেছে।

ডিত্তো ক্লিপর্বোড ব্যবহারের টিপস্

১. ডিত্তো ক্লিপর্বোডকে সবসময় স্ক্রীনে দেখতে চাইলে কন্ট্রোল এবং স্পেসবার একসাথে চাপুন আবর স্ক্রীন থেকে সরিয়ে ফেলতে চাইলে একইভাবে কন্ট্রোল এবং স্পেসবার একসাথে চাপুন।

২. ডিত্তো ক্লিপর্বোডে যদি অনেক ডাটা স্টোর থাকে তবে আপনি সহজে র্সাচ করেও আপনার ডাটা কাঙ্খিত ডাটা বের করে পেস্ট করতে পারবেন।

ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার

ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার

৩. আপনি এডভান্স অপশন ব্যবহার করে ডিত্তো ক্লিপর্বোডে অনেক সুবিধা নিতে পারবেন।

৪. ডিত্তো ক্লিপর্বোড উইন্ডোস ক্লিপর্বোডের মতই কাজ করে। যেমন আপনি কোন ইমেজ কপি করে ডিত্তো ক্লিপর্বোডের মাধ্যমে নোটপেডে পেস্ট করতে পারবেন না। বরং ইমেজ পেস্ট করতে পারবেন ওর্য়াড/এক্সেল বা কোন গ্রাফিক্স সফ্টওয়্যারে।

ডিত্তো ক্লিপর্বোড ম্যানেজার একাটি চমৎকার প্রোডাক্টিভিটি টুলস্। এর মাধ্যমে কাজের অনেক সময় বাচে। এটা এমন একটি প্রোগ্রাম ব্যবহারের সময় মনে হবে মাইক্রোসফ্ট কেন এইটা উইন্ডোজের ফিচার হিসাবে যোগ করলনা।