আমাদের অনেকের ল্যাপটপই প্রথম দিকে ভালো চার্জ থাকে। কিন্তু কয়েকদিন যাবার পর আর চার্জ তেমন থাকে না। তবে কিছু নিয়ম মেনে চললে এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

১) ল্যাপটপের এক্সটার্নাল ডিভাইস ও পোর্টঃ
ল্যাপটপের সাথে যুক্ত বাড়তি প্রতিটি অনুষঙ্গই চার্জ খরচ করে। এর মধ্যে আছে এক্সটার্নাল মাউস, কীবোর্ড কিংবা পোর্টেবল হার্ডডিস্ক, ওয়াইফাই এবং ব্লুটুথ। আমাদের উচিত কাজ শেষ হবার পর এগুলো বন্ধ রাখা । গ্রাফিক্স প্রসেসিংয়ের জন্যও খরচ হয় ল্যাপটপের চার্জ। আর তাই প্রয়োজন না হলে এসকল ডিভাইস খুলে রাখতে পারেন।

২) ব্যাটারি সেভার মোডে রাখাঃ

সব ব্র্যান্ডের ল্যাপটপেই আছে ব্যাটারি সেভিং মোড। এই ফিচারটি চালু থাকলে ল্যাপটপ নিজে থেকেই বেশ কিছু উপায় অবলম্বন করে যার মাধ্যমে চার্জ খরচ যথাসম্ভব কম হয়। এক্ষেত্রে ডিসপ্লে ব্রাইটনেস কম থাকে, অপ্রয়োজনীয় কম্পোনেন্টগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যায় এবং ল্যাপটপের চালু থাকা প্রায় সব কম্পোনেন্টই খুব কম পরিমাণে চার্জ খরচ করে। ফলে ল্যাপটপের চার্জ সাশ্রয় হয়।

৩) প্রয়োজন ছাড়া অ্যাপ বন্ধ রাখাঃ
ল্যাপটপে এমন অনেক প্রসেস চলতে থাকে যেগুলোর কোন প্রয়োজন পড়ে না। বরং এর মাধ্যমে ল্যাপটপের চার্জ অনেকটাই ফুরিয়ে যায়। উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের ক্ষেত্রে সিস্টেম ট্রে থেকে দেখে নিতে পারেন কোন অ্যাপটি আপনার আপাতত প্রয়োজন নেই। বাছাই করে এমন অ্যাপগুলো বন্ধ করে দিন। এছাড়া টাস্ক ম্যানেজারে গেলেও পাওয়া যাবে এমন অনেক অ্যাপস কিংবা সফটওয়্যার যেগুলো কোন কারণ ছাড়াই চলছে। বাছাই করে এ ধরণের সফটওয়্যারগুলো বন্ধ করে দিন।

৪) সেটিংস গত প্রবলেমঃ

অনেক ল্যাপটপের কীবোর্ডেই ব্যাকলাইট থাকে। তবে প্রয়োজন না থাকলে এই ব্যাকলাইট বন্ধ করে রাখলে চার্জ সাশ্রয় হবে। এর পাশাপাশি ডিসপ্লে ব্রাইটনেসও কমিয়ে রাখা উচিত। সম্পূর্ণ ব্রাইটনেসে ডিসপ্লে চালু রাখলে যেমন চোখের উপর বাড়তি চাপ পড়ে, তেমনি ল্যাপটপের চার্জ শেষ হয়। এছাড়া ডিসপ্লের রেজ্যুলেশন কমিয়ে রাখলে ব্যাটারির চার্জ সাশ্রয় হবে। ল্যাপটপের স্পিকার প্রয়োজন ছাড়া বন্ধ করে রাখুন।

এখন কিভাবে আপনার ল্যাপটপের ব্যাটারির যত্ন নিবেন সে ব্যাপারে কিছু ট্রিকস দিচ্ছি,

  • ল্যাপটপের চার্জার ভোল্ট ঠিক মত আউটপুট না হলে ব্যাটারি প্রবলেম হয়ে থাকে।
  • ল্যাপটপের ব্যাটারি রিমুভেবল হলে সেগুলো কিছুদিন পরপর খুলে পরিষ্কার করতে হবে।
  • প্রয়োজনে ল্যাপটপ কুলার ব্যবহার করা যেতে পারে। কারণ অতিরিক্ত তাপের কারণে ব্যাটারির স্থায়িত্ব কমে যায়।
  • তাই ল্যাপটপের ভেতরের গরম বাতাস যেন ঠিকঠাক বের হয়ে যেতে পারে সেদিকে নজর দিতে হবে।

ধন্যবাদ।